২৭ জুলাই, ২০২১ | ১২ শ্রাবণ, ১৪২৮

লামায় ৪০ বছরের ভোগদখলীয় জায়গা জবরদখলের চেষ্টা, থানায় অভিযোগ

প্রকাশ : সোমবার, ১৪ জুন, ২০২১

ইসমাইলুল করিম, লামা

বান্দরবানের লামায় ফাইতং ইউনিয়ন ৩নং ওয়ার্ড কলার ঝিরিতে চকরিয়া হারবাং-এর আব্দুল মোনাফের বিরুদ্ধে ফাইতং ইউপি এলাকায় অসহায় পরিবারের বসতবাড়ি সংলগ্ন প্রায় সাড়ে ৩ একর জায়গা রোপণ কৃত গাছের চারা তুলিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং জবরদখল ও প্রাণ নাশের হুমকি অভিযোগ উঠেছে।

এই ঘটনায় বিচার চেয়ে জায়গার মালিক মো. নুরুল হুদা (৫৮) অভিযুক্ত চকরিয়া আব্দুল মোনাফ (৫৫), আব্দু রহমান (৭০) ও মোঃ আবু কালাম (৫২) পিতা আবুল কাশেম ৩জনকে বিবাদী ও ০৮-১০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে সোমবার (১৪ জুন) লামা থানায় অভিযোগ করেন।

সরে জমিনে গিয়ে স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, জায়গার মালিক নুরুল হুদা পিতা – আহাম্মদ কবির সরকার হতে ১৯৮৪-৮৫ সালে ৩২১ নং বন্ধোবস্তি পেয়ে ৩০৬ নং ফাইতং মৌজা আর হোল্ডিং- ২৬৭৭ মূলে সাড়ে ৩একর ৩য় শ্রেণীর জায়গা বন্দোবস্তি দখলে আছে।

গত বুধবার ০৯ জুন দখলীয় এতে সে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করে। একই জায়গায় বহু পরিশ্রম ও প্রচুর টাকা ব্যায় করে ফল বনজ ও বিভিন্ন প্রজাতি গাছের বাগান এবং অবশিষ্ট জায়গায় লেবু বাগান সহ ১টি টিনের চাউনিযুক্ত ২ রুম বিশিষ্ট বসতবাড়ী নির্মাণ করে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বসবাসরত আছেন।

এমতাবস্থায় প্রতিপক্ষ/বিবাদীগণের জায়গায় কু-দৃষ্টি পড়িলে নুরুল হুদা কে নিরীহ ও সহজ সরলতার সুযোগে নানা অজুহাতে ও ছলছুতায় বে-আইনী পন্থানুসরণে জোর পূর্বক অনুপ্রবেশ করে বাগান কৃত বসতবাড়ি দখল করিয়া তাহার পরিবারের সদস্যদের উচ্ছেদ করে জবর দখলের পায়তারা চালাচ্ছে ।

সরকারি দেওয়া জায়গার মালিক মো. নুরুল হুদা ছেলে সাজ্জাদুল ইসলাম জানান, আমার বাবা নামে জায়গাটি প্রায় ৪০ বছর যাবৎ ভোগদখলে থাকা সত্ত্বেও (সোমবার ১৪জুন’) সকাল অনুমান ৯ ঘটিকায় প্রতিপক্ষ আব্দুল মোনাফ নেতৃত্বে বহিরাগত চকরিয়া থেকে ৮/১০ জন ভাড়াটিয়া এনে জোরপূর্বক জবর দখল করার নিমিত্তে হামলা চালায়। তাদের বাঁধা প্রদান করিলে উক্ত জায়গা হতে আমাকে ও আমার পরিবারের লোকজন কে মারিবে কাটিবে এমনকি প্রাণ নাশের হুমকি প্রদান করে এবং মারার জন্য আগাইয়া আসে।

বিবাদী গন আমাকে হুমকি প্রদান করিতেছে যে, আমাকে উক্ত জায়গা থেকে উচ্ছেৎ করার জন্য বিভিন্ন রকম হয়রানি ও মিথ্যা মামলা জড়িয়ে দিবে বলে এবং তাদেরকে এই জায়গার বিষয়ে কাগজ পত্র দেখাতে বললে দেখায় না, বরং আমার টা দেখতে চাইলে তাদেরকে আমি ২ বার মূল কাগজের ফটোকপি দিয়। এরপরও তারা কোনো রকম তাদের কাগজপত্র দেখাচ্ছে না আমাকে।

বিষয়টি স্থানীয় সম্মানিত ব্যক্তিবর্গকে অবগতি করলে তারা লামা থানায় অভিযোগ করার পরামর্শ দেয়।

জায়গার পার্শ্ববর্তী মো. জহির ও শওকত জানান, আমি দেখতেছি ৪০ বছর এই জায়গায় নুরুল হুদা নামে এক মুরুব্বীর দখলে আছে। এখন দেখতেছি আব্দুল মোনাফ নামে একজন এসে ভোগদখলের চেষ্টা করতেছে। একইসাথে ওয়ার্ড মেম্বার জয়নাল আবেদীন বাদীকে আইনের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দেন।

অভিযোগ অস্বীকার করে আব্দুল মোনাফ বলেন, ক্রয়সূত্রে ওই জায়গার মালিক আমি। এ জন্য দখলে নিতে চাচ্ছি এবং এই জায়গায় পাশে আমার দখলে জায়গায় আছে । আর কাউকে হুমকিও দেয়নি। আমার প্রতিপক্ষরা ষড়যন্ত্র করে এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে।

এবিষয়ে থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বলেন, বাদী সাজ্জাদুল ইসলাম এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

ট্যাগ :