২৯ জানুয়ারি, ২০২২ | ১৫ মাঘ, ১৪২৮

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রতিষ্ঠা হবে শক্তিশালী অর্থনৈতিক জোন, বাড়বে কর্মসংস্থান

জুনে খুলবে পদ্মা সেতু

প্রকাশ : সোমবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২১

ডেস্ক রিপোর্ট

  • চীনের দুই প্রতিষ্ঠান দ্রুতগতিতে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে টার্গেটের মধ্যেই পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে :

দেশের কোটি কোটি মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ এখন শেষ পর্যায়ে। মূল সেতুর কাজের অগ্রগতি ৯৫ শতাংশের বেশি। চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) দ্রুতগতিতে সেতুর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। নানা প্রতিক‚লতা কাটিয়ে এখন শুধু স্বপ্নধরার হাতছানি। ২০২২ সালের জুনে পদ্মা সেতু খুলে দেয়ার টার্গেট নিয়েই চলছে শেষ পর্যায়ের কাজ। সেতুতে যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়ার লক্ষ্যে গত নভেম্বর মাস পর্যন্ত পদ্মা সেতু প্রকল্পের সার্বিক কাজ এগিয়েছে ৮৯ শতাংশ। আর মূল সেতুর কাজের অগ্রগতি ৯৫ দশমিক ২৫ শতাংশ। অর্থাৎ মূল সেতুর কাজের আর বাকি মাত্র ৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ সেতুর দুইপার্শ্বে জড়ো হচ্ছেন সেতু দেখতে। সেতু উদ্বোধন দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে কোটি কোটি মানুষ। এই সেতু নির্মাণে নদী শাসনের কাজ করছে, চীনের আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। আর সংযোগ সড়ক ও অবকাঠামো নির্মাণ করেছে বাংলাদেশের আবদুল মোমেন লিমিটেড।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি জানিয়েছেন টার্গেটের মধ্যেই পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে। এখন পিচ ঢালাইয়ের কাজ চলছে। সেটা শেষ হলেই শেষ। পদ্মা সেতু ২০২২ সালের জুনে উদ্বোধন হবে, সেটি তো আগেও বলা হয়েছে।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু ঘিরে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নপূরণ হতে চলছে। মানুষের ভাগ্যবদলে নতুন দিগন্ত উন্মোচন করছে সেতুটি। খুলছে অর্থনীতি ও সামাজিক উন্নয়নের দ্বার। আরও সহজ হবে রাজধানীর সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগ। ফলে দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনীতির চাকা ঘোরার পাশাপাশি বাড়বে কর্মসংস্থান। এ অঞ্চল হবে দেশের শক্তিশালী অর্থনৈতিক জোন। পদ্মা সেতু ঘিরে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পাশাপাশি পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনা বাড়তে শুরু করেছে। পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আবদুল কাদের দৈনিক ইনকিলাবকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এদিকে, পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পে সময়-ব্যয় বাড়ছে। প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কমিটির সভায়ও সম্প্রতি এর কারণ এবং যৌক্তিকতা তুলে ধরা হয়। বাড়তি দেড় বছর সময় ও ১ হাজার ১৭৮ কোটি টাকা ব্যয় বাড়ানোর কথা বলা হয় সভায়। প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার। বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে আলাপ-আলোচনা শুরু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে, প্রকল্প সংশোধনী প্রস্তাবের কাজ মাত্র শুরু হয়েছে। এখনও চুড়ান্ত হয়নি প্রস্তাব। সময় ও ব্যয় কম বা বেশি হতে পারে। প্রথমে প্রস্তাব রেল মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে, তারপরই চ‚ড়ান্তভাবে পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হবে। পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে, এই প্রকল্পের বিষয়ে তাদের কাছে এখনও কোনো প্রস্তাব বা তথ্য আসেনি। প্রকল্পটিতে গত নভেম্বর পর্যন্ত আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে ৫১.৮২ শতাংশ। এ পর্যন্ত প্রকল্পটিতে খরচ হয়েছে ২০ হাজার ৩৩৭ কোটি টাকা। প্রকল্পের অগ্রগতি হয়েছে ৪৮ শতাংশ।

পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য মামুন-আল-রশীদ বলেন, এ প্রকল্পের বিষয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব এখনও আমাদের হাতে আসেনি। এমনকি এই বিষয়ে কোনো চিঠিও পাইনি। প্রস্তাব পেলে সময় ও ব্যয় বিষয়ে কমিশন যাচাই-বাছাই করে মতামত দেবে।

জানা যায়, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের সাথে উত্তর-পূর্ব অংশের সংযোগ ঘটাবে এ পদ্মা সেতু। উন্নয়নশীল দেশের জন্য পদ্মা সেতু হতে যাচ্ছে ইতিহাসের একটি সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জিং নির্মাণ প্রকল্প। দুই স্তর বিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট নির্মিত ট্রাস ব্রিজটির ওপরের স্তরে থাকবে চার লেনের সড়কপথ এবং নিচের স্তরটিতে থাকবে একটি একক রেলপথ। পদ্মা সেতু নির্মাণকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি। সেতুটি চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার সঙ্গে ঢাকাসহ সারা দেশের যোগাযোগ সহজ হবে। পদ্মা সেতু নির্মাণে সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন হয় ২০০৫ সালে। প্রকল্প নেয়া হয় ২০০৭ সালে। ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা। কিন্তু নানা জটিলতায় সাত বছর পর মূল সেতুর কাজ শুরু হয় ২০১৪ সালে। এখন পর্যন্ত ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা। সময়মতো কাজ না হওয়ার পেছনে পদ্মা নদীর অননুমেয় রূপ, বন্যায় ভাঙন, করোনা পরিস্থিতিকে দায়ী করা হয়। গত বছরের ডিসেম্বরে সেতুর সর্বশেষ স্টিলের কাঠামো বা স্প্যান বসানোর পর মূলত কারিগরিভাবে জটিল কাজ শেষ হয়। যুক্ত হয় মুন্সীগঞ্জের মাওয়া এবং শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্ত। পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে প্রতিবছর কী পরিমাণ যানবাহন চলাচল করবে, তা নিয়ে ২০০৯ সালে একটি বিস্তারিত সমীক্ষা করে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। এতে দেখা যায়, ২০২২ সালের শুরুতে যদি পদ্মা সেতু উদ্বোধন হয়, তাহলে ওই বছর প্রতিদিন সেতু দিয়ে চলাচল করবে প্রায় ২৪ হাজার যানবাহন। ২০৫০ সালে যা দাঁড়াবে প্রায় ৬৭ হাজার।

সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, পদ্মা সেতু চালু হলে পণ্যবাহী যানবাহনের একটা বড় অংশ হবে ভারতের। দেশটির পশ্চিমাংশ থেকে পূর্বাংশে মাল পরিবহন হবে এই পথে। নেপাল ও ভুটানকেও সেতুটি যুক্ত করতে পারবে। এতে আন্তবাণিজ্য বাড়বে। পদ্মা সেতু নির্মাণে মোট খরচ ৩০ হাজার ১৯৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো তৈরি, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক, ভ‚মি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ, বেতন-ভাতা ইত্যাদি। বাংলাদেশের অর্থ বিভাগের সঙ্গে সেতু বিভাগের চুক্তি অনুযায়ী, সেতু নির্মাণে ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে সরকার। ১ শতাংশ সুদ হারে ৩৫ বছরের মধ্যে সেটি পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ। প্রস্তাবিত পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প মাওয়া-জাজিরা পয়েন্ট দিয়ে নির্দিষ্ট পথের মাধ্যমে দেশের কেন্দ্রের সাথে দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের সরাসরি সংযোগ তৈরি করবে।

এই সেতুটি অপেক্ষাকৃত অনুন্নত অঞ্চলের সামাজিক, অর্থনৈতিক ও শিল্প বিকাশে উল্লেখযোগ্যভাবে অবদান রাখবে। প্রকল্পটি দেশের পরিবহন নেটওয়ার্ক এবং আঞ্চলিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। সেতুটিতে ভবিষ্যতে গ্যাস, বৈদ্যুতিক লাইন এবং ফাইবার অপটিক কেবল সম্প্রসারণের ব্যবস্থা রয়েছে। পদ্মা সেতু চালুর পর এর পূর্ণ সদ্ব্যবহার এবং দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের আর্থসামাজিক উন্নয়নে গত এক দশকে বেশ কিছু প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত রেললাইন প্রকল্প চলমান আছে। ঢাকা থেকে ফরিদপুরের ভাঙা পর্যন্ত সেতুর দুই প্রান্তে ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের সর্বমোট বাজেটের মধ্যে গত নভেম্বর মাস পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে ২৬ হাজার ৪৭৬ কোটি ৩৩ লাখ টাকা বা মোট বাজেটের ৮৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ। মূল সেতুর কাজের চুক্তিমূল্য প্রায় ১২ হাজার ৪৯৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। যার মধ্যে চলতি বছরের নভেম্বর মাস পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে প্রায় ১১ হাজার ৫১২ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। এদিকে সেতু প্রকল্পের আওতায় নদী শাসনের কাজের অগ্রগতি হয়েছে সাড়ে ৮৬.৫০ শতাংশ এবং আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে ৭৮.৩৭ ভাগ। নদী শাসন কাজের চুক্তিমূল্য ৮ হাজার ৯৭২ কোটি ৩৮ লাখ টাকার মধ্যে ব্যয় হয়েছে ৭ হাজার ৩১ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

প্রকৌশল বিভাগ জানায়, মূল সেতুর মধ্যে ২ হাজার ৯১৭টি রোডওয়ে সøাব, ২ হাজার ৯৫৯টি রেলওয়ে সøাব ও ৫ হাজার ৮৩৪টি শেয়ার পকেট বসানো হয়েছে। ১২ হাজার ৩৯০টি প্যারপেট ওয়ালের মধ্যে ১২ হাজার ২৫৪টি স্থাপন সম্পন্ন হয়েছে। আর মাওয়া ও জাজিরার ভায়াডাক্টে ৪৩৮টি সুপারটি গার্ডারের মধ্যে ৪৩৮টি এবং ৮৪টি রেলওয়ে আই গার্ডারের মধ্যে ৮৪টিই স্থাপন করা হয়েছে। মূল সেতুর মোট ৪১টি ট্রাস রয়েছে, যার সবগুলো এরই মধ্যে স্থাপন করা হয়েছে। যার দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ১৫০ মিটার বা ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার। এদিকে সেতুর দুইপাশে সংযোগ সড়ক ও সার্ভিস এরিয়ার কাজ এর মধ্যেই শতভাগ শেষ হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে ১ হাজার ৪৯৯ কোটি ৫১ লাখ টাকা। এছাড়া ভ‚মি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ খাতে বরাদ্দ ৪ হাজার ৩৪২ কোটি ২৬ লাখ টাকা। অন্যান্য (পরামর্শক, সেনা নিরাপত্তা, ভ্যাট ও আয়কর, যানবাহন, বেতন ও ভাতাদি এবং অন্যান্য) খাতে বরাদ্দ ২ হাজার ৮৮৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। সেতুর অবশিষ্ট কাজের মধ্যে ওয়াটার প্রæফিং মেমব্রিনের কাজ ১৩ ভাগ, কার্পেটিং-২ দশমিক ০৫ ভাগ, মুভমেন্ট জয়েন্ট ৫৯ ভাগ, ল্যাম্পপোস্ট ৯ দশমিক ৩০ ভাগ কাজ এগিয়েছে। সেতুতে রেলওয়ে ১০০ ভাগ সম্পন্ন। এছাড়া গ্যাস পাইপ লাইন ৪৯ দশমিক ৩৫ ভাগ এবং ৪০০ কেভিএ বিদ্যুৎ লাইনের কাজ ৬২ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে।

মাদারীপুরের শিবচরের সবজি চাষি বাদল সরদার বলেন, সেতুর অভাবে তাদের পণ্য ঢাকায় পাঠাতে খরচ বেশি হয়। ফেরির জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। এতে পরিবহন ভাড়া বেশি গুণতে হয় যা লাভ হয় অর্ধেক অংশ গাড়ি ভাড়ায় খরচ হয়ে যায়। যাতায়াতে দীর্ঘসময় ব্যয় হওয়াতে কাঁচামাল অনেকটা নষ্ট হয়ে যায়। সেতুটি চালু হলে সহজে বাজার ধরা যাবে। পরিবহন খরচও কমবে। জুলহাস নামে পিকআপ চালক বলেন, পিকআপ-ভ্যান দিয়ে কাঁচামাল পরিবহন করেন। যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু সেতু হওয়ার পর ওই অঞ্চল থেকে সবজিসহ নানা পণ্য ঢাকায় বেশি পরিমাণ আসে। এখন যমুনা সেতু হয়ে চলাচলকারী এখন যানবাহনের সংখ্যা অনেক বেশি। তেমনিভাবে পদ্মা সেতু খুলে দেয়া হলে সবধরনের পণ্য পরিবহন করা সহজ হবে। এ অঞ্চলের সবজি নিয়ে গেলে ফেরি পারাপারের সমস্যা থাকবে না। ঢাকার কারওয়ান বাজারে যেতে সময় লাগবে কম। ট্রাক চালক জাকির মিয়া বলেন, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের লোকজন পদ্মা সেতুর অপেক্ষায় খুলে দেয়ার অপেক্ষায়। তারা সেতু চালু হলে সহজে শস্য, সবজি ও মাছ ঢাকায় পাঠাতে পারবেন। উদ্যোক্তারা অপেক্ষায় পুঁজি নিয়ে, সেতু চালু হলে কাঁচামাল ও পণ্য আনা-নেয়া সহজ হবে তাই শিল্পকারখানা গড়ে উঠতে শুরু করেছে।

প্রকল্পের কর্মকর্তারা বলছেন, প্রথম দিকে পদ্মা নদীর তলদেশের মাটি খুঁজে পেতে বেগ পেতে হয় সেতু নির্মাণকারী প্রকৌশলী ও বিশেষজ্ঞদের। তলদেশে স্বাভাবিক মাটি পাওয়া যায়নি। সেতুর পাইলিং কাজ শুরুর পরে সমস্যা দেখা যায়। প্রকৌশলীরা নদীর তলদেশে কৃত্রিম প্রক্রিয়ায় মাটির বদলে নতুন মাটি তৈরি করে পিলার গাঁথার চেষ্টা করে। স্ক্রিন গ্রাউটিং নামের এ পদ্ধতিতেই বসানো হয় পদ্মা সেতু। এ সেতু ঘিরে তিনটি বিশ্ব রেকর্ড হয়েছে। পদ্মা সেতুর খুঁটির নিচে সর্বোচ্চ ১২২ মিটার গভীরে স্টিলের পাইল বসানো হয়েছে। এসব পাইল তিন মিটার ব্যাসার্ধের। বিশ্বে এখনো পর্যন্ত কোনো সেতুর জন্য এত গভীরে পাইলিং প্রয়োজন হয়নি এবং মোটা পাইল বসানো হয়নি। ভ‚মিকম্প থেকে রক্ষা পেতে এই সেতুতে ফ্রিকশন পেন্ডুলাম বিয়ারিংয়ের সক্ষমতা হচ্ছে ১০ হাজার টন। এখন পর্যন্ত কোনো সেতুতে এমন সক্ষমতার বিয়ারিং লাগানো হয়নি। রিখটার স্কেলে ৯ মাত্রার ভ‚মিকম্পে টিকে থাকার মতো করে পদ্মা সেতু নির্মিত হচ্ছে।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আবদুল কাদের বলেন, ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হয় পদ্মা সেতু। এরপর একে একে ৪২টি পিলারে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যরে ৪১টি স্প্যান বসিয়ে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু পুরোপুরি দৃশ্যমান হয়েছে ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর। সর্বশেষ সংশোধিত প্রকল্প প্রস্তাব অনুসারে, আগামী বছরের জুনের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ করার কথা। মূল সেতু নির্মাণে কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। দুটি সংযোগ সড়ক ও অবকাঠামো নির্মাণ করেছে বাংলাদেশের আবদুল মোমেন লিমিটেড। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে পদ্মা সেতুর কাঠামো। আগামী বছর ২০২২ সালের জুন মাসে যানবাহন চলাচলের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেয়ার কথা রয়েছে বলে জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

ট্যাগ :