৩০ নভেম্বর, ২০২১ | ১৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮

অপশক্তির ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের ডাক

প্রকাশ : সোমবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২১

  • রাজধানীতে যুবলীগের শোডাউন
  • সুশৃঙ্খল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ মহামারী করোনা সংক্রমণ কমে আসায় দীর্ঘদিন পর রাজধানীতে বড় ধরনের শোডাউন করেছে দেশের সর্ববৃহৎ যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। সংগঠনটির ৪৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীতে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে নিয়ে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা করেছে যুবলীগ। শোভাযাত্রা শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ থেকে বাংলাদেশ এবং বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির যে কোন ধরনের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রাজপথে থেকেই ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সহযোগী এই বৃহৎ ও ঐতিহ্যবাহী যুব সংগঠনটি।

যুবলীগের আনন্দ শোভযাত্রাকে সামনে রেখে শুক্রবার সকাল থেকে নেতাকর্মীদের ঢল নামে স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিখা চিরন্তরের সামনে। ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড থেকে রং-বেরঙের ব্যানার-ফেস্টুন-প্ল্যাকার্ড নিয়ে বাদ্য-বাজনার তালে তালে হাজার হাজার নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে পুরো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকা লোকে-লোকারণ্য হয়ে পড়ে। করোনা মহামারীর প্রায় দু’বছরের মাথায় রাজধানীতে কোন রাজনৈতিক দলের কোন সহযোগী সংগঠন এই প্রথম রাজধানীতে বিশাল শোডাউন করল।

যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের নেতৃত্বে উৎসবমুখর পরিবেশে সুশৃঙ্খল এই বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভযাত্রাটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যান থেকে শুরু হয়। শোভাযাত্রাটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সামনে থেকে বের হয়ে শাহবাগ, কাঁটাবন, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, সিটি কলেজ, মিরপুর রোড হয়ে ঐতিহাসিক ধানম-ির ৩২ নম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাসভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

আনন্দ শোভযাত্রা শেষে যুবলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সংগঠনটির চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, এটা একটা ঐতিহাসিক বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভযাত্রা। এই আনন্দ শোভযাত্রার মাধ্যমে আপনারা প্রমাণ করেছেন যুবলীগ শুধু বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় যুবসংগঠন নয়, যুবলীগ উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় ও শক্তিশালী যুব সংগঠন। আপনারা ঐক্যবদ্ধ থাকলে বঙ্গবন্ধুকন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা তার উন্নয়ন কর্মকান্ড মসৃণভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে পারবেন।

হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রশ্নে আপোসহীন যুবলীগ। বাংলাদেশ এবং শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে যে কোন ধরনের ষড়যন্ত্র রাজপথে থেকেই তা প্রতিহত করবে ঐক্যবদ্ধ যুবলীগ। তিনি সংগঠনের ৪৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য এই শোভাযাত্রা উপহার দেয়ার জন্য কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, ঢাকা জেলা, গাজীপুর জেলা ও গাজীপুর মহানগরসহ সকল স্তরের নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শেখ ফজলে শামস পরশ।

যুবলীগের বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রায় চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ছাড়াও সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতা মঞ্জুর আলম শাহীন, ডাঃ খালেদ শওকত আলী, শেখ ফজলে ফাহিম, মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন এমপি, রফিকুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান পবন, মোয়াজ্জেম হোসেন, বিশ্বাস মতিউর রহমান বাদশা, সুব্রত পাল, বদিউল আলম, মহানগর দক্ষিণের মাইনুদ্দিন রানা, রেজাউল করিম রেজাসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৭২ সালের ১১ নবেম্বর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে শেখ ফজলুল হক মনির নেতৃত্বে আওয়ামী যুবলীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। সেই থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে যুবসমাজকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্য নিয়েই প্রতিষ্ঠিত হয় এ সংগঠনটি। গত চার দশকের বেশি সময় ধরে দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রাম ও হাজারো নেতাকর্মীর আত্মত্যাগের মাধ্যমে যুবলীগ আজ দেশের সর্ববৃহৎ যুব সংগঠনে পরিণত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ট্যাগ :