১৯ জুন, ২০২১ | ৫ আষাঢ়, ১৪২৮

বাঁচতে চায় শিক্ষার্থী কংজ মার্মা

প্রকাশ : রবিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২১

অনলাইন ডেস্ক, ঐতিহ্য টিভি

শিক্ষার্থী কংজ মার্মার আকুতি ” আমি বাঁচতে চাই ” আমাকে বাঁচান। এমন আকুতি মিনতি করেন আলীকদম উপজেলার ০৬ নং ওয়ার্ড ২ নং চৈক্ষ্যং ইউনিয়নে শিক্ষার্থী বান্দরবান সরকারি কলেজ ” অনার্স চতুর্থ বর্ষ রাস্ট্র বিজ্ঞান” বিভাগে অধ্যায়নরত মেধাবী শিক্ষার্থী কংজ মার্মা।

টিউমার রোগে আক্রান্ত কংজ মার্মার চোখে মুখে বিষন্নতার ছাপ। সমাজের বিত্তবান মানুষের নিকট আর্থিক সাহায্যের মাধ্যমে বাঁচার আবেদন জানিয়েছে কংজ মার্মা ও তার পরিবার।

জানা গেছে, আলীকদম উপজেলার চৈক্ষ্যং ইউনিয়নের মংচিং হেডম্যান পাড়া গ্রামের হত দরিদ্র য়েইচামং মার্মার ছেলে মেধাবী ছাত্র কংজ মার্মা (২৪)। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় ভাল রেজাল্ট পেয়েছিলো কংজ মার্মা। চার ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট সে। গরীব বাবা মায়ের অভাব অনটনের সংসার হলেও পড়াশোনা আর হাসি খুশিতেই সময় কাটছিলো তার। সবার ছোট বলে পরিবারে তার আদর একটু বেশিই ছিলো। কিন্তু হঠাৎ করেই কংজ মার্মার জীবনে নেমে এলো ঘোর অন্ধকার। তার পেঠে প্রচন্ড ব্যাথা হয়। অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে নেয়া হয় চিকিৎসকের কাছে। নানা পরীক্ষা নিরীক্ষার পর চিকিৎসকরা জানান কংজ মার্মা টিউমার রোগে আক্রান্ত। অভাবী সংসারে কংজ মার্মার চিকিৎসা করা অসম্ভব।

কংজ মার্মার চিকিৎসার ব্যবস্থাপনা পত্র

তবুও দরিদ্র পিতা ধার দেনা করে প্রায় ৭০/ ৮০ হাজার টাকা ব্যায় করেছেন ছেলের চিকিৎসার জন্য। অর্থাভাবে প্রায় ১ মাস যাবত চিকিৎসা বন্ধ রয়েছে কংজ মার্মার। ফলে তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হচ্ছে। বর্তমানে কংজ মার্মার জীবন নিয়ে শঙ্কায় পড়েছে তার পরিবার। সন্তানকে বাঁচাতে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন দরিদ্র বাবা সমজ উদ্দিন।

তাহার বড় ভাই উফাছা মার্মা জানান,কংজ মার্মার উন্নত চিকিৎসা করতে বলে ছিলেন চিকিৎসকরা। কিন্তু অর্থাভাবে তা করা সম্ভব হয়নি। এ ব্যাপারে কংজ মার্মার অসহায় পিতা য়েইচামং মার্মা বলেন- আমাদের বসত ভিটে ছাড়া সহায় সম্বল বলতে আমার কিছু নেই। ছেলের কষ্ট সহ্য হয়না। তিনি সমাজের বিত্তবানদের কাছে আর্থিক সহযোগীতা কামনা করছেন।

যোগাযোগ নাম্বার – 0182548880, পার্সোনাল বিকাশ ও নগদ নাম্বার- 018816966421
সোনালী ব্যাংক, লামা শাখা একাউন্ট নং-
11103101015452 বান্দরবান পার্বত্য জেলা।

বিজ্ঞাপন

ট্যাগ :